শনিবার, ডিসেম্বর ১৫, ২০১৮
Home > গ্যালারীর খবর > সততা, নিষ্ঠা আর একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করলেই দেশ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

সততা, নিষ্ঠা আর একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করলেই দেশ এগিয়ে যাবে: প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা

বাংলাভূমি ডেস্ক ॥
প্রধানমন্ত্রী শেখ হাসিনা বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন কর্মকর্তাদের উদ্দেশে বলেছেন, ‘নিজেদের ভাগ্য উন্নয়নে নয়, মানুষের ভাগ্য উন্নয়নে কাজ করি বলেই দেশ এগিয়ে যাচ্ছে। অনেকে বলেন- উন্নয়নের পেছনে ম্যাজিক কী? আমি বলি ম্যাজিক কিছুই না সততা, নিষ্ঠা আর একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করলেই যেকোনো দেশের উন্নয়ন সম্ভব।’

তিনি বলেন, প্রজাতন্ত্রের কর্মচারীরা যদি সততা, নিষ্ঠা ও একাগ্রতার সঙ্গে কাজ করেন তাহলে বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে।

আজ বৃহস্পতিবার শাহবাগে বেলা ১১টায় বাংলাদেশ সিভিল সার্ভিস প্রশাসন একাডেমিতে চলমান ১০৭, ১০৮ ও ১০৯তম আইন এবং প্রশাসন কোর্সের সমাপনী অনুষ্ঠানে প্রধান অতিথির বক্তব্যে তিনি একথা বলেন।

অনুষ্ঠানে বক্তব্য রাখেন, জনপ্রশাসন প্রতিমন্ত্রী ইসমত আরা সাদেক ও জনপ্রশাসন মন্ত্রণালয়ের সচিব ফয়েজ আহমদ।
স্বাগত বক্তব্য রাখেন বিসিএস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর মোশাররফ হোসেন।

প্রশিক্ষণে অংশ গ্রহণকারীদের মধ্যে প্রতিক্রিয়া ও অনুভুতি ব্যাক্ত করে বক্তব্য রাখেন রেক্টর অ্যাওয়ার্ডপ্রাপ্ত স ম আজহারুল ইসলাম সনিক, শরীফ আসিফ রহমান ও মুশারেফ হুসাইন।

অনুষ্ঠানে প্রধানমন্ত্রী প্রশিক্ষণে অংশগ্রহণকারীদের মধ্যে সনদ বিতরণ করেন। প্রধানমন্ত্রীকে বই ও শুভেচ্ছা স্বারক প্রদান করেন বিসিএস প্রশাসন একাডেমির রেক্টর মোশাররফ হোসেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, সততাই শক্তি- দেশের মানুষের প্রতি এই দায়িত্ববোধ থেকে কাজ করলে বাংলাদেশ আরও উন্নত হবে। বাংলাদেশ এগিয়ে যাবে। আর আজকের বাংলাদেশ এগিয়ে নেয়ার সৈনিক হলেন প্রশাসনিক কর্মকর্তা।

তিনি বলেন, আমরা ২১০০ সালের জন্য ডেল্টা প্লান করেছি। আমরা নেদারল্যান্ড সরকারের সঙ্গে এ পরিকল্পনা বাস্তবায়ন করব। এ ছাড়া এর আগে ২০২১ সালে আমরা বাংলাদেশকে যেভাবে দেখতে চাই বা আরও উন্নত দেখতে চাই আজকের কর্মকর্তারাই বাংলাদেশকে সে জায়গায় নিয়ে যাবেন। দেশের অগ্রযাত্রা অব্যাহত রাখবেন।

প্রধানমন্ত্রী বলেন, আমরা ক্ষমতায় আসার পর থেকেই কীভাবে বাংলাদেশকে উন্নত করা যায়, বিশ্বদরবারে বাংলাদেশকে কীভাবে সম্মানের আসনে বসানো যায় সেই হিসেবে কাজ করেছি। পদ্মা সেতু নিয়ে একটা চ্যালেঞ্জ ছিল আমরা সে চ্যালেঞ্জ গ্রহণ করে মিথ্যা অপবাদ সবকিছু ভেদ করে এগিয়ে চলেছি। তারা পদ্মা সেতুর বিষয়ে আমার ও আমার পরিবারের সদস্যদের বিরুদ্ধে যে অভিযোগ এনেছিল কানাডার আদালত সেটাকে মিথ্যা এবং ভুয়া হিসেবে প্রমাণিত করেছে। আমরা নিজেদের টাকা দিয়ে পদ্মা সেতু করার যে উদ্যোগ নিয়েছি তা আজ দৃশ্যমান। এই একটা সিদ্ধান্তই বাংলাদেশের মান মর্যাদা আজ অনেক ওপরে তুলেছে।

তিনি বলেন, কোনো সরকার যদি ব্যবসা করে তাহলে সে সরকার কখনোই দেশের উন্নয়ন করতে পারে না। বিশ্বের বিভিন্ন দেশে বাংলাদেশকে ভুলভাবে উপস্থাপন করা হয়েছে। এজন্য আমাদের দেশেই আলাদা কিছু লোক আছে। বিশ্বের অনেক দেশ জানতো- বাংলাদেশ মানে ভিক্ষুকের দেশ; ঝড়, বন্যা, খরা আর দুর্যোগের দেশ। এ ছাড়া ভিক্ষুকের জাতি বলেও জানতো। আমরা সে বদনাম ঘুচিয়ে দিয়েছি। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নশীল দেশ। বাংলাদেশ এখন উন্নয়নের রোল মডেল। বিশ্বের বড় বড় দেশের সঙ্গে তাল মিলিয়ে আমাদেরকে চলতে হবে। পরিকল্পনা নিয়ে কাজ করতে হবে তাহলেই বাংলাদেশ উন্নত দেশ হিসেবে বিশ্ব দরবারে প্রতিষ্ঠিত হবে।