বৃহস্পতিবার, আগস্ট ২২, ২০১৯
Home > Uncategorized > বারি’তে আন্তঃ যোগাযোগ উন্নতিকরণ পরামর্শ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

বারি’তে আন্তঃ যোগাযোগ উন্নতিকরণ পরামর্শ কর্মশালা অনুষ্ঠিত

প্রেসবিজ্ঞপ্তি ॥
বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউট (বারি) এর ফার্ম মেশিনারী এন্ড পোস্ট-হার্ভেস্ট প্রসেস ইঞ্জিনিয়ারিং বিভাগ (এফএমপিই) কর্তৃক আয়োজিত “সরকারি, এনজিও এবং উৎপাদক প্রতিষ্ঠানের মধ্যে আন্তঃ যোগাযোগ উন্নতিকরণ” শীর্ষক দিনব্যাপী পরামর্শ কর্মশালা বৃহস্পতিবার এফএমপিই বিভাগের সেমিনার কক্ষে অনুষ্ঠিত হয়। কর্মশালায় বারি’র বিভিন্ন বিভাগের বিজ্ঞানীসহ বিভিন্ন কৃষি গবেষণা প্রতিষ্ঠান, কৃষি সম্প্রসারণ অধিদপ্তর, পল্লী কর্ম সহায়ক ফাউন্ডেশন, বিভিন্ন বিশ্ববিদ্যালয়, এনজিও এবং কৃষি যন্ত্রপাতি উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানের প্রতিনিধিগণ অংশগ্রহণ করেন।

বারি’র পরিচালক (গবেষণা) ড. মো. আব্দুল ওহাবের সভাপতিত্বে কর্মশালায় প্রধান অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন ইনস্টিটিউট-এর মহাপরিচালক ড. আবুল কালাম আযাদ। অনুষ্ঠানে বিশেষ অতিথি হিসেবে উপস্থিত ছিলেন পরিচালক (প্রশিক্ষণ ও যোগাযোগ) জেবুন নেছা, পরিচালক (পরিকল্পনা ও মূল্যায়ন) ড. বাবু লাল নাগ এবং পরিচালক (কন্দাল ফসল গবেষণা কেন্দ্র) ড. এ কে এম শামছুল হক। অনুষ্ঠানে স্বাগত বক্তব্য উপস্থাপন করেন এফএমপিই বিভাগের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ড. মো. আইয়ুব হোসেন। অনুষ্ঠানে প্রকল্পের সংক্ষিপ্ত কার্যক্রম উপস্থাপন করেন বীজ প্রযুক্তি বিভাগের মুখ্য বৈজ্ঞানিক কর্মকর্তা ও প্রকল্পটির পরিচালক ড. অপূর্ব কান্তি চৌধুরী।

প্রধান অতিথির বক্তব্যে বারি মহাপরিচালক ড. আবুল কালাম আযাদ বলেন, বর্তমান সরকারের অন্যতম প্রধান লক্ষ্য ২০৪১ সালের মধ্যে কৃষির শতভাগ যান্ত্রিকীকরণ। বিশ্বের উন্নত দেশগুলো ইতোমধ্যে এ লক্ষ্য অর্জন করেছে। তবে এটা অর্জন করা অনেক বড় একটা বিষয়। বাংলাদেশ কৃষি গবেষণা ইনস্টিটিউটও তার সীমিত সামর্থ্যরে মাধ্যমে সরকারের এ লক্ষ্য অর্জনে সাহায্য করে যাচ্ছে। ইতোমধ্যে আমরা শস্য সংগ্রহ ও তার পরবর্তী সময়ে সংরক্ষণের জন্য বিভিন্ন কৃষি যন্ত্র উদ্ভাবন করেছি। আর এসব প্রযুক্তি সাধারণ মানুষের কাছে পৌছে দেয়ার জন্য আমাদের আন্তঃযোগাযোগ বৃদ্ধি করা জরুরী। আমি আশা করি, আজকের এই কর্মশালার মাধ্যমে সরকারি, বেসরকারি ও কৃষি যন্ত্র উৎপাদনকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর মধ্যে আন্তঃযোগাযোগ আরও সুদৃঢ় হবে।

কর্মশালার কারিগরী সেশনে অংশগ্রহণকরারীরা দলগত কার্যক্রম, উপস্থাপনা এবং আলোচনায় অংশগ্রহণ করেন।